জালালাবাদ মাদরাসায় আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে ।  মাদরাসার আয়োজিত মাহফিলে সভাপতিত্ব ও দোয়া পরিচালনা করেন অত্র জালালাবাদ মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা দেশবরেণ্য হাফেজ বিশিষ্ট ইসলামিক চিন্তাবিদ আলহাজ্ব হাফেজ মুহাম্মদ তৈয়ব, প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ওলামা লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী, ওলামা লীগের কেন্দ্রীয় নেতা হাফেজ মাওলানা ইদ্রিস, মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহাম্মদ মুশতাক, চট্রগ্রাম ওলামা লীগ নেতা মাওলানা আব্দুর রহীম ও হাফেজ মাওলানা নেজাম প্রমুখ। দোয়া পূর্ব মাহফিলে প্রধান অতিথি মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী বলেন, আপনারা আজ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া-মাহফিলের আয়োজন করেছেন এতে আমি অনেক আনন্দিত। কেননা আপনারা দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন। বঙ্গকন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনা কওমী মাদরাসার শিক্ষা সনদের এমএ সমমানের স্বীকৃতি দিয়ে আপনাদেরকে যে সম্মানিত করে মর্যাদার আসনে বসিয়েছেন তারই কৃতজ্ঞতায় এই দোয়া-মাহফিল। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ইসলামের মূল শিক্ষার প্রতি আন্তরিক এবং শ্রদ্ধাশীল। তিনি ইতিমধ্যে কওমী সনদের স্বীকৃতি, আরবী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা ও পাঁচশত ৬০টি মডেল মসজিদ প্রতিষ্ঠাসহ পঁচাত্তর হাজার কোরআন শিক্ষা কেন্দ্র স্থাপন করে তা প্রমাণ করেছেন। মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও ইসলামের প্রচার-প্রসারের জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠাসহ ইসলামের খেদমতে বহুমুখী অবদান রেখেছেন। কৃতজ্ঞতার দোয়া-মাহফিল চার দালানের ভিতর সীমাবদ্ধ রাখলে চলবেনা। শেখ হাসিনা ইসলামের জন্য বহুমুখী যে খেদমত করে যাচ্ছে তা মসজিদ মাদরাসার বাহিরেও ওয়াজ মাহফিলের মাধ্যমে জনগণের মাঝে তুলে ধরবেন। তাহলেই কৃতজ্ঞতার প্রকৃত হক আদায় হবে বলে আমি বিশ্বাস করি। আওয়ামী লীগের ধর্ম উপকমিটির সদস্য বলেন, ইসলামের অপব্যাখা করে একশ্রেণীর ক্ষমতালোভী স্বাধীনতাবিরোধী চক্র আওয়ামী লীগ তথা সরকারের বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তারা তাদের চক্রান্ত বাস্তবায়নে সরলমনা আলেম-ওলামাদেরকে মিথ্যাচারের মাধ্যমে উস্কানি দিয়ে বিভ্রান্ত করে অতীতের ন্যায় মাঠে নামানোর অপচেষ্টাও করতে পারে। আশা করি আপনারা সে চক্রান্তে পা না দিয়ে চলমান উন্নয়ন অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখার স্বার্থে ও দেশের শান্তি-সম্প্রীতি রক্ষায় নাগরিকের দায়িত্ববোধে সজাগ থেকে দায়িত্ব পালন করে যাবেন ইনশাআল্লাহ। ধর্ম যারযার রাষ্ট্র সবার সম্মানিত আলেম সমাজকে এই বিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে। আমরা চাই আগামীতে বীর চট্রলায় সর্বজনশ্রদ্ধীয় হুজুর হাফেজ তৈয়ব সাহেবের নেতৃত্ব দেশপ্রেমিক আলেম সমাজের এক অটুট ঐক্য গড়ুক। যে নেতৃত্বের মাধ্যমে গড়ে উঠবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ তরুণ আলেম সমাজের বহর। যারা অন্যায়ের প্রতিবাদে ভূমিকা রাখবে সাইয়্যেদানা উমর ইবনে খাত্তাব রাঃ ন্যায় আর অধিকার আদায়ে ভুমিকা রাখবে বিশ্বে শোষিত গণমানুষের নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো। হাফেজ মুহাম্মদ তৈয়ব দোয়ায় আল্লাহ সোবহানাহু তা’য়ালার দরবারে প্রধানমন্ত্রী’র সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা ছাড়াও সকল শহীদ মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধুসহ পঁচাত্তরের শাহাদাতবরণ কারী সকল শহীদ ও জাতীয় চারনেতা এবং একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত নারী নেত্রী আইভী রহমানসহ সকল শহীদদের রুহের শান্তি কামনা করেন। এছাড়াও মুনীজাতে দেশের শান্তি, উন্নয়ন-অগ্রগতিকে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের সকল দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গের কথা উল্লেখ করা হয়।

চট্রগ্রামের জালালাবাদ মাদরাসায় প্রধানমন্ত্রীর জন্য বিশেষ দোয়া

করোনা সচেতনতা বাড়াতে বিএসএএফ’র মাস্ক বিতরণ স্টাফ করেসপন্ডেন্ট করোনার সচেতনতা বাড়াতে মক্তরের শিশু শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেছে সামাজিক সংগঠন বাংলাদেশ সোস্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম (বিএসএএফ)। সোমবার ( ১১ অক্টোবর) দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার পূর্ব জগন্নাথপুরে একটি মক্তবের শিশু শিক্ষার্থীদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করা হয়। এসময় সংগঠন প্রধান সমন্বয়কারী মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী বলেন, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কমে যাওয়ায় অনেকের গা-ছাড়া ভাব দেখা দিয়েছে। করোনার প্রাদুর্ভাব কমলেও করোনা চলে যায়নি। গ্রামের শিশুদেরও করোনাকালে মাস্ক পড়তে হবে। সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে। তিনি আরও বলেন, স্বাস্থ্য বিজ্ঞানীরা বলছেন, যেকোনো মুহূর্তে করোনা ভাইরাসের প্রভাব বাড়তে পারে, তাই আমাদের সবসময় সচেতন থাকতে হবে। অভিভাবকদেরও দায়িত্ব শিশুদের পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা। এরা আমাদেরই সন্তান। আগামীতে দেশ গড়ার কারিগর। মাস্ক বিতরণে অংশগ্রহণ করেন, ন্যাশনাল ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটির ( এনএফএস) সভাপতি গণবন্ধু রাহাত হুসাইন, বাংলাদেশ সোস্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরামের (বিএসএফ) সদস্য নাফি উদ্দিন উদয়, শাফি উদ্দিন বিনয় ও রাফী উদ্দিন বিজয় প্রমুখ।

করোনা সচেতনতা বাড়াতে বিএসএএফ’র মাস্ক বিতরণ স্টাফ করেসপন্ডেন্ট করোনার সচেতনতা বাড়াতে মক্তরের শিশু শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেছে সামাজিক সংগঠন বাংলাদেশ সোস্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম (বিএসএএফ)

শ‌নিবার (৩১ জুলাই) সকা‌ল থেকেই ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু‌ মহাসড়‌কের বি‌ভিন্ন এলাকায় কর্মস্থ‌লে ফেরা মানুষ‌দের উপ‌চে পড়া ভিড় দেখা গে‌ছে। কর্মস্থ‌লে ফেরা এসব শ্রমজীবী মানুষ খোলা ট্রাক, পিকআপ, প্রাইভেটকার, সিএনজি ও মোটরসাইকেলে গাদাগাদি করে গন্তব্যে যাচ্ছে। এতে স্বাভা‌বি‌কের চে‌য়ে কয়েকগুণ বেশি ভাড়া আদায় করা হ‌চ্ছে। কোথাও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। এছাড়া বৃ‌ষ্টি‌তে ভি‌জে খোলা ট্রাক ও মোটরসাইকেল চলাচলে চরম ভোগা‌ন্তি‌তে পড়‌তে হ‌চ্ছে এসব কর্মজীবী মানুষের।

মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপাড়, এলেঙ্গা বাসস্ট‌্যান্ড, টাঙ্গাইল বাইপাস, রাবনা বাইপাস, মির্জাপুর অং‌শে যাত্রীদের প্রচুর পরিমাণে ভিড় রয়েছে। ত‌বে মহাসড়‌কে স্বাস্থ‌্য ঝুঁকি ও নিরাপত্তার ঝুঁকি নি‌য়ে চলাচল করা এসব বিষ‌য়ে পুলিশের তেমন কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি।
গার্মেন্টস শ্রমিকরা বলেন, ছু‌টি নি‌য়ে ঈদে বা‌ড়ি‌তে আস‌ছিলাম। প‌রিবহন খু‌লে না দি‌য়ে কীভা‌বে পোশাক কারখানা চালু কর‌ল। এখন শ্রমিকরা কীভা‌বে কর্মস্থ‌লে ফির‌বে। কিছু যানবাহন পাওয়া যায় তা‌তেও তিনগুণ ভাড়া চাওয়া হ‌চ্ছে। সরকার যাই বলুক নির্ধা‌রিত সম‌য়ে কা‌জে যোগদান কর‌তে না পার‌লে চাক‌রি থাক‌বে না। তাই বাধ্য হয়ে কর্মস্থল ঢাকায় ফিরতে হচ্ছে।
আরেক গার্মেন্টস কর্মী ইসরাত জানান, গার্মেন্টস খোলার ঘোষণার পর কোম্পানি‌ থে‌কে নির্ধা‌রিত সম‌য়ে কা‌জে যোগদা‌নের জন‌্য বলা হ‌য়ে‌ছে। তাই তাকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাধ‌্য হয়েই চাক‌রি বাঁচা‌তে ঢাকায় ফিরতে হচ্ছে।

গার্মেন্টস খোলা, চাকরি বাঁচাতে ট্রাকে-পিকআপে ঢাকায়

৭ আগস্ট থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ের টিকাদান কেন্দ্রে জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে গেলে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সবাইকে টিকা দেওয়া হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

৭ আগস্ট থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ের টিকাদান কেন্দ্রে জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে গেলে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সবাইকে টিকা দেওয়া হবে — স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

২০২২ সালের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থী ও মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট স্থগিত করা হলেও চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম চলবে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে স্কুলগুলোকে। আর শিক্ষার্থীরা সুবিধাজনক সময়ে অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে পারবেন।

সোমবার (২৬ জুলাই) মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মাধ্যমিক শাখার পরিচালক মো. বেলাল হোসাইন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আমরা ২০২২ সালের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থী ও ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম স্থগিত করেছি। কিন্তু চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট চলবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদে অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ ও জমা নেওয়ার কার্যক্রম পরিচালনা করতে সব স্কুলকে বলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, লকডাউন এলাকায় শিক্ষার্থীদের সুবিধাজনক সময়ে অ্যাসাইনমেন্ট জমার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল। সে নির্দেশনা বহাল থাকবে। শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সুবিধাজনক সময়ে অ্যাসাইনমেন্ট জমা নেবে স্কুলগুলো।

তবে অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ঈদ পরবর্তীতে আজ (২৬ জুলাই) থেকে এবারের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশের কথা থাকলেও তা এনসিটিবি থেকে হাতে পায়নি মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। আজ সংগ্রহ করে তা প্রকাশ করার চেষ্টা করবেন বলেও জানা গেছে। তিন সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রস্তত রয়েছে।

চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম চলবে

ঈদুল আজহার আগে অনেকটাই শিথিল হচ্ছে বিধিনিষেধ।
আগামী ১৫ জুলাই থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে সব ধরনের গণপরিবহন। একই সঙ্গে খুলবে দোকানপাট-শপিংমল, সেক্ষেত্রেও স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মানতে হবে।
এসব শর্ত দিয়ে বিধিনিষেধ শিথিল করে সোমবার সন্ধ্যা বা মঙ্গলবার সকাল নাগাদ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। শিথিল করে নতুন বিধিনিষেধের মেয়াদ আগামী ২৩ জুলাই পর্যন্ত বর্ধিত হতে পারে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।
শিথিল সময়ে সরকারি অফিস ভার্চুয়ালি চলবে বলেও জানা গেছে। ঈদুল আজহা উদযাপনে সুবিধার জন্য সরকার বিধিনিষেধ শিথিলের এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
আগামী ২১ জুলাই (বুধবার) দেশে মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। এরপর ২৩ জুলাই সকাল থেকে আবারও কঠোর বিধিনিষেধ দেয়ার প্রস্তুতি সরকারের রয়েছে বলে জানা গেছে।

১৫ জুলাই থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে সব ধরনের গণপরিবহন

সংসদে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া শিখবে, কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারি না।

স্কুল-কলেজ খোলার দাবি করে ছেলেমেয়েদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেবেন কি না সংসদ সদস্যদের তা বিবেচনা করার আহ্বান জানিয়ে সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া শিখবে, কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারি না। টিকা দেওয়ার পর আমরা সব স্কুল খুলে দেব।’ করোনার টিকা নিয়ে দুশ্চিন্তা না করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যত লাগে টিকা কিনব। তার জন্য বাজেটে আলাদা টাকা রাখা আছে। বেশি দামে টিকা কিনে তা বিনামূল্যে জনগণকে দেওয়া হচ্ছে।’

গতকাল শনিবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে সমাপনী বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তৃতায় চলমান লকডাউনে দেশবাসীকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি সংসদে বিএনপি ও বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যদের বিভিন্ন বক্তব্যের জবাব দেন। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পর রাষ্ট্রপতির আদেশ পাঠ করে সংসদ অধিবেশনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন স্পিকার।

——

স্কুলে যায় না, তারাই বেশি সোচ্চার : সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের দেওয়া বক্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যাদের ছোট ছোট ছেলেমেয়ে স্কুলকলেজইউনিভার্সিটিতে যায়, তারাই কিন্তু তাদের বাচ্চাদের স্কুলে পাঠাতে চান না। তবে যাদের ছেলেমেয়ে লেখাপড়া করে না, ইদানীং সবচেয়ে বেশি সোচ্চার তারা! পড়ানোর মতো ছেলেমেয়ে নেই, তারাই বেশি কথা বলে। কিন্তু যারা যায়, তারা তো চাচ্ছে না। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া শিখবে, কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারি না। টিকা দেওয়ার পরে আমরা সব স্কুল খুলে দেব। এর আগে আমরা যখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নিলাম তখনই সারা বিশ্বে করোনাভাইরাস মহামারি এমনভাবে ছড়িয়ে পড়ল যে, তার ধাক্কা এসে পড়ল আমাদের মধ্যে। এখন তো শিশুদেরও করোনা সংক্রমণ হচ্ছে। লেখাপড়া শিখবে কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেব কি না তা সংসদ উপনেতাকে একটু বিবেচনা করতে বলব।

দেশের সবাইকে বিনামূল্যে টিকা দেব : বিশ্বের যে দেশেই করোনার টিকা আবিষ্কার হচ্ছে সেই দেশে সঙ্গে সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেখানে যেখানে টিকা পাওয়া যাচ্ছে, আমরা সঙ্গে সঙ্গে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি, আরো টিকা আনব। যত লাগে টিকা কিনব। টিকা আসতে শুরু হয়েছে কোনো অসুবিধা হবে না। আমরা এরই মধ্যে ঘোষণা দিয়েছি, দেশের ৮০ ভাগ লোককে টিকার আওতায় নিয়ে আসব। বেশি দামে টিকা কিনে তা বিনামূল্যে জনগণকে দেওয়া হচ্ছে।

সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রসঙ্গে সংসদ নেতা বলেন, জনগণকে গত ঈদুল ফিতরে বার বার অনুরোধ করলাম আপনারা আপনাদের জায়গা ছেড়ে যাবেন না, কিন্তু অনেকেই তো সে কথা শোনেননি, সবাই ছুটে চলে গেছেন। আর তার ফলটা কি হলো? সবাই যদি আমাদের কথা শুনতেন তাহলে হয়তো আজকে এমনভাবে করোনা ছড়িয়ে পড়ত না। তারপরেও মানুষ আসলে যেতে চায় এটাই সমস্যা। তিনি বলেন, আমাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি, মানুষের পাশে দাঁড়াতে। শুধু সরকার না আমাদের দলের পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগ সহযোগী সংগঠনের মাধ্যমে বিভিন্নভাবে মানুষকে সহযোগিতা করে যাচ্ছি। এরই মধ্যে প্রণোদনা দিয়েছি বিভিন্ন খাতে। আর্থিক সহায়তা দিচ্ছি। এমন কোনো শ্রেণিপেশার মানুষ নেই যাদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়নি। যেহেতু আবার করোনা দেখা দিয়েছে, আমাদের সাধ্যমতো জনগণকে আবার সহায়তা দেব, কারো খাদ্য প্রাপ্তিতে যাতে অসুবিধা না হয় অবশ্যই সেই বিষয়টা আমরা দেখব।

সংক্রমণ এড়াতে মহামারিকালে সবাইকে এক্ষেত্রে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, মহামারি প্রতিরোধে সরকার যেসব নির্দেশনা দিয়েছে, সেগুলো মেনে চললে মহামারি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। আমরা এখন লকডাউন ঘোষণা করেছি। আপনারা অন্ততপক্ষে নির্দেশনাগুলো মেনে নিজেকে সুরক্ষিত রাখেন, অন্যকে সুরক্ষিত রাখুন। মাস্ক পরা, হাত পরিষ্কার করা, আর যেন কোনোমতেই যেন সংক্রমিত না হন, তার জন্য দূরত্ব বজায় রাখা। এটা করতে পারলেই কিন্তু আমরা করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে পারব

 

সংসদে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া শিখবে, কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারি না।

কিংবদন্তি চলচ্চিত্র অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন ( ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন ) ।

তার মৃত্যুতে চলচ্চিত্র অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১৩ দিনের মাথায় না ফেরার দেশে চলে গেলেন বাংলা চলচ্চিত্রের এই কিংবদন্তি অভিনেত্রী । তাঁর বয়স হয়েছিল ৭০ বছর।

কিংবদন্তি চলচ্চিত্র অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী ইন্তেকাল করেছেন ( ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন ) ।

“আপনাদের শঙ্কিত হওয়ার কোন কারণ নেই। সরকার সব সময় আপনাদের পাশে রয়েছে। দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানার পর আমি দরিদ্র-নিম্নবিত্ত মানুষদের সহায়তার জন্য কার্যক্রম গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছি। আমরা ইতোমধ্যে পল্লী অঞ্চলে কর্মসৃজনের জন্য ৮০৭ কোটি ৬৫ লাখ টাকা এবং পবিত্র রমজান ও আসছে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ৬৭২ কোটিরও বেশি টাকা বরাদ্দ দিয়েছি। এর দ্বারা দেশের প্রায় ১ কোটি ২৪ লাখ ৪২ হাজার নিম্নবিত্ত পরিবার উপকৃত হবেন। গত বছর করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকে ভিজিএফ, টেস্ট রিলিফসহ বিভিন্ন সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতা বৃদ্ধি করা হয়েছে।”

“তবে আমাদের সবাইকে সাবধান হতে হবে। আমাদের প্রত্যেকের দায়িত্ব আমাদের নিজের, পরিবারের সদস্যদের এবং প্রতিবেশির সুরক্ষা প্রদানের। কাজেই ভিড় এড়িয়ে চলুন। বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহার করুন। ঘরে ফিরে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে গরম পানির ভাপ নিন। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকার ইতোমধ্যে ১৮-দফা নির্দেশনা জারি করেছে। আমরা যদি সকলে করোনাভাইরাস মোকাবিলার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, অবশ্যই এই মহামারিকে আমরা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হবো, ইনশাআল্লাহ।”

“প্রিয় দেশবাসী,
যুগে যুগে মহামারি আসে, আসে নানা ঝড়-ঝঞ্ঝা, দুর্যোগ-দুর্বিপাক। এসব মোকাবিলা করেই মানবজাতিকে টিকে থাকতে হয়। জীবনের চলার পথ মসৃণ নয়। তবে পথ যত কঠিনই হোক, আমাদের তা জয় করে এগিয়ে যেতে হবে।

আপনাদের শঙ্কিত হওয়ার কোন কারণ নেই। সরকার সব সময় আপনাদের পাশে রয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

চাঁদের হিসাব ও রোজার সংখ্যা : আলহাজ্জ্ব খাজা শাহ সূফী সৈয়্যেদ নূরে আখতার হোসাইন আহমদীনূরী মা.জি.আ.
ইসলামের প্রথম ও প্রধান ফরজ জ্ঞানার্জন করা। যে কোন ইবাদত পালন করার জন্য সেই ইবাদতের নিয়ম-কানুন সম্পর্কে আগে জানতে হয়। তা না হলে ইবাদত ত্রুটিমুক্ত হয় না। ত্রুটিযুক্ত ইবাদত থেকে কাঙ্ক্ষিত রহমত, নেয়ামত ও ফজিলত লাভ করা যায় না। তাই বলা হয়েছে এক ঘণ্টার জ্ঞান চর্চা ৭০ বছর নফল ইবাদতের চেয়ে উত্তম। বিদ্বানের কলমের কালি শহীদের রক্তের চেয়েও পবিত্র। এ রকম অসংখ্য মূল্যবান বাণীর মাধ্যমে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন এবং তাঁর রাসূল পাক সাঃ জ্ঞানার্জনের প্রতি সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করেছেন।
মুসলমানদের অনেক ইবাদত চাঁদের হিসাবের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। আল্লাহ পাক এবং তাঁর হাবিব মুহাম্মদ সাঃ চাঁদের হিসাব সম্পর্কে বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করেছেন। রাসূল সা. নতুন চাঁদের যথাযথ হিসাব রাখতেন এবং উম্মতগণকে সে বিষয়ে সবিশেষ নির্দেশনা দান করেছেন। কেননা সঠিক ভাবে ইবাদত বন্দেগী পালন এবং তা থেকে কাক্সিক্ষত রহমত-নেয়ামত লাভ করতে হলে চাঁদের হিসাব সম্পর্কে সম্যক ধারণা রাখা এবং সঠিক ভাবে হিসাব গণনা করা একান্তভাবে জরুরী। যে দিনে যে সময়ে যে ইবাদতের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তা যদি সঠিক দিন-ক্ষণ সময়ে পালিত না হয় তবে শ্রম বিফল হবে, সময় নষ্ট হবে এবং কোন কোন ক্ষেত্রে ফজিলত লাভের পরিবর্তে ভুল দিন-ক্ষণে ইবাদত পালন আদেশ লঙ্ঘনের সামিল বা গুনাহের কারণও হয়ে থাকে। তাই এ বিষয়ে জ্ঞানার্জন করা অতি আবশ্যক।
চাঁদের হিসাবে গরমিলের কারণে নির্দিষ্ট সময়ের কাঙ্ক্ষিত রহমত-ফজিলত হতে বঞ্চিত হতে হয়, কেননা শবে কদর, শবে বরাত, শবে মিরাজ ইত্যাদি এক রাতেরই ব্যাপার। হিসাব গণনা সঠিক না হলে তা পাওয়া যাবে না। একই ভাবে হিসাবের ক্রটির কারণে রমজানের ফরজ রোজা বিলম্বে শুরু এবং ঈদের দিনে রোজা রাখার মাধ্যমে হারাম রোজাও পালিত হয়।
পবিত্র কুরআনে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেছেন, নিশ্চয় আল্লাহর বিধান ও গণনার মাস বারটি, আসমানসমূহ ও পৃথিবী সৃষ্টির দিন থেকে। তন্মেধ্যে চারটি মাস সম্মানিত। এটিই সুপ্রতিষ্ঠিত বিধান, সুতরাং তোমরা নিজেদের প্রতি অত্যাচার করো না। (সূরা তওবা, আয়াত-৩৬) আল কুরআনে অন্যত্র বর্ণিত হয়েছে, তিনিই সে মহান সত্তা যিনি বানিয়েছেন সূর্যকে উজ্জ্বল আলোকময়, আর চন্দ্রকে স্নিগ্ধ আলো বিতরণকারীরূপে এবং অতঃপর নির্ধারণ করেছেন এর জন্য মনজিলসমূহ, যাতে করে তোমরা চিনতে পার বছরগুলোর সংখ্যা ও হিসাব। আল্লাহ তায়ালা এই সমস্ত কিছু এমনিতেই সৃষ্টি করেননি, কিন্তু যথার্থতার সাথে। তিনি প্রকাশ করেন লক্ষণ সমূহ সে সমস্ত লোকের জন্য যাদের জ্ঞান আছে। (সূরা ইউনুছ, আয়াত-৫)
এভাবে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন চাঁদের সঠিক হিসাবের গুরুত্ব অনুধাবনে জ্ঞানী ব্যক্তিদের মর্যাদা সম্পর্কেও বর্ণনা করেছেন। চাঁদের হিসাবের বিষয়ে অন্য একটি আয়াতে বর্ণিত হয়েছে, (হে রাসূল সাঃ) ! মানুষ আপনাকে নতুন চাঁদ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করে। আপনি বলে দিন তা মানুষের জন্য সময় নির্ধারক এবং হজ্বের সময় নির্ধারণকারী। (সূরা বাকারা, আয়াত-১৮৯)
আল কুরআনের এ সকল নির্দেশ ও নিদর্শন সমগ্র বিশ্বের মানব জাতির জন্য সমভাবে প্রযোজ্য। দেশ বা অঞ্চল বিশেষে তা হেরফের করার সুযোগ নেই। তাই এলাকা ভিত্তিক চাঁদের ভিন্ন ভিন্ন হিসাব গ্রহণীয় নয়। ইসলামের বিধি-বিধান যথার্থরূপে পালনের লক্ষ্যে মুসলিম রাষ্ট্রসমূহের সংগঠন ওআইসি’র অঙ্গ সংস্থা ‘ইসলামী ফিকাহ একাডেমী’ ১৯৮৬ সালে আম্মানে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে ৬ নং প্রস্তাবে ঘোষণা করে, “কোন দেশে নতুন চাঁদ দেখা গেলে অন্য দেশের মুসলমানদেরও তাই মেনে চলা দরকার। চন্দ্র উদয়ের স্থানের পার্থক্য বিবেচনার প্রয়োজন নেই। কেননা চাঁদ দেখা মাত্র রোজা রাখার (অর্থাৎ রমজান শুরু করার) ও শাওয়ালের চাঁদ দেখে ঈদ করার আদেশ সার্বজনীন ও সবার জন্যে প্রযোজ্য।”
বিশ্বের সকল মুসলিম দেশের ইসলামী আইন বিশারদগণ ওআইসি’র ফিকাহ একাডেমির সদস্য। তাদের উক্ত সিদ্ধান্ত অনুসারে বিশ্বের ৫৭টি মুসলিম দেশের মধ্যে ৪৭টি দেশে একই দিনে রোজা, ঈদ ও অন্যান্য ইসলামী পর্ব পালন করছে। বিশ্বের সবচেয়ে বড় মুসলিম দেশ ইন্দোনেশিয়া। আর জ্ঞান-বিজ্ঞানে অগ্রসর দেশ সমূহের অন্যতম মালয়েশিয়া। এই দেশ দুইটির অবস্থান বিশ্ব মানচিত্রের পূর্ব দিকে। বাংলাদেশের সাথে সৌদি আরবের সময় পার্থক্য ৩ ঘণ্টার। কিন্তু ইন্দোনেশিয়া-মালয়েশিয়ার সাথে সৌদি আরবের সময় পার্থক্য ৫-৬ ঘণ্টা। তা সত্ত্বেও সে সব দেশ ওআইসি’র ফেকাহ একাডেমির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বিশ্বে প্রথম চন্দ্র দর্শনের উপর ভিত্তি করে চাঁদের উপর নির্ভরশীল ইসলামী পর্ব সমূহ উদযাপন করে আসছে। একই সঙ্গে তাদের পার্শ্ববর্তী ব্রুনাই, কোরিয়া এবং সিঙ্গাপুরেও একই দিনে ইসলামী অনুষ্ঠান সমূহ পালন করে।
ওআইসি’র উক্ত সিদ্ধান্ত কিছু মুসলিম রাষ্ট্র অনুসরণ না করার ফলে দেখা যায় একই ইবাদত বা অনুষ্ঠান বিশ্বব্যাপী ৩ দিনেও পালিত হয়ে থাকে। মুসলিম বিশ্বের এ বিশৃঙ্খল অবস্থা সম্পর্কে ২৮ অক্টোবর ২০০৬ এক প্রেস রিলিজে ওআইসি’র মহাসচিব একমেলেদ্দীন ইহসানোগলু বলেন,’ “এ বছর (২০০৬) ঈদুল ফিতর উদযাপনে সময়ের পার্থক্য ৩ দিন পৌঁছেছে। আধুনিক বিজ্ঞান বিশেষতঃ জ্যোতির্বিজ্ঞানের অভাবনীয় অগ্রগতির যুগে এই অবস্থা দুঃখজনক। তিনি আরো বলেন, ইসলামী উৎসবগুলোর বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। এসব উৎসব বিশ্বের সব মুসলিমের হৃদয়ে ঐক্যের বার্তা পৌঁছে দেয়। এই ঐক্য এসব উৎসবের নির্যাস হিসেবে প্রকাশ পায়। কিন্তু এসব উৎসব বর্তমানে মুসলিমদের মধ্যে ঐক্যের বদলে অনৈক্য ও বিভেদের উপলক্ষ হিসেবে উপস্থিত হয়েছে। এতে মুসলিমদের ইতিবাচক ভাবমূর্তি প্রকাশ পাচ্ছে না। এটি একটি বড় ধরনের ভুল। কারণ এসব ধর্মীয় উৎসব ধর্মের বস্তুনিষ্ঠতা থেকে দূরে সরে যেয়ে একঘেয়েমি ও কূপমন্ডুকতার দিকে নিয়ে যাচ্ছে।”
বর্তমান জ্ঞান-বিজ্ঞানের যুগে ওআইসি ছাড়াও বহু মুসলিম ব্যক্তি, সংস্থা ও রাষ্ট্র উপলব্ধি করতে পেরেছে যে, চাঁদ কেন্দ্রিক ইবাদত ভিন্ন ভিন্ন দিতে পালন করা ইসলামের মূল আদেশের সঙ্গে সাযুজ্যপূর্ণ নয় এবং তা আল্লাহর নিকট গ্রহণযোগ্যও নয়। কেননা রমজান মাস নির্দিষ্ট সময়ে রহমতের ভান্ডারসহ আগমন করে। আল্লাহর রহমতের আগমন বার্তা সাধারণ মানুষ অনুধাবন করতে না পারলেও মহান আল্লাহর অলিগণ রুহানী শক্তিবলে তা ঠিকই উপলব্ধি করতে পারেন। সেজন্য তাঁদের আকাশের দিকে তাকিয়ে চাঁদ দেখার প্রয়োজন হয় না। হযরত বড়পীর মহিউদ্দিন আবদুল কাদির জিলানী রহ. এর জীবনে এর প্রকৃষ্ট নিদর্শন পাওয়া যায়। তিনি রমজানের ১ তারিখে জন্মগ্রহণ করেন এবং জন্মাবধি রমজান মাসে রোজা রাখতেন। তাঁর জীবনের প্রথম দিনের ঘটনা থেকে চাঁদের হিসাবের রহস্য জানা যাবে।
শাবান মাসের ২৯ তারিখে নতুন চাঁদ দেখার আশায় হাজার হাজার মানুষ অপেক্ষা করছে। পারস্যের জিলান নগরীর আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকায় তাদের পক্ষে নতুন চাঁদ দেখা সম্ভব হয়নি। পরের দিন রোজা রাখবে কি-না সকলে দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ছিলেন। হযরত আবদুল কাদির রহ. এর পিতা-মাতা সকলের কাছে পরম শ্রদ্ধেয় ছিলেন। ধর্মীয় কোন মাসয়ালা-মাসায়েল জানতে হলে সকলে ছুটে যেত তাদের কাছে। চাঁদ না দেখতে পেয়ে পরের দিন প্রত্যুষে সকলে ছুটলো আবদুল কাদির রহ. এর বাড়িতে। ঘটনাক্রমে তাঁর পিতা সৈয়্যেদ আবু সালেহ মুসা জঙ্গীদুস্ত রহ. সেই সকালে বাড়িতে ছিলেন না। তখন মাতা উম্মুল খায়ের ফাতেমা রহ. সকলকে আশ্বস্ত করলেন এই বলে যে, “রেওয়ায়েতে আছে শাবানের ২৯ তারিখে চাঁদ না দেখা গেলে ৩০ তারিখ গণনা করতে হবে। তারপর রমজান শুরু করতে হবে। তবে বিস্ময়ের ব্যাপার আমার শিশুপুত্র আবদুল কাদির সুবহে সাদিকের পর থেকে কিছুই পান করছে না। আমি তাঁর মুখের মধ্যে দুধ বা মধু দিলেও তা সে বের করে দিচ্ছে। আমার মনে হয় আল্লাহর অশেষ মেহেরবাণীতে সে রোজা পালন করছে।”
মাতার মুখে এ কথা শুনে সকলে বিস্ময়ে অভিভূত হলেন। ফলে তারা সিদ্ধান্ত নিলেন সেদিনে রোজা রাখবেন। পরের দিন আকাশ পরিষ্কার ছিল।
সকলে দেখলেন, যে চাঁদ আকাশে উঠেছে তা দ্বিতীয় দিনের চাঁদ। এখানে শিক্ষণীয়, হাজার হাজার মানুষ আকাশের দিকে তাকিয়ে থেকে যে সিদ্ধান্ত নিতে পারলেন না, শিশু আবদুল কাদির জিলানী মাতৃক্রোড়ে থেকেই সেই সিদ্ধান্ত নিতে পারলেন। আল্লাহর অলিদের পক্ষে এটা সম্ভব। আল্লাহর ঘোষিত নির্দিষ্ট সময়ের সাথে যে নির্ধারিত রহমত ফজিলত পৃথিবীর বুকে অবতীর্ণ হয় তা তাঁরা সাথে সাথে উপলব্ধি করতে পারেন এবং সে মোতাবেক ইবাদত-বন্দেগী পালন করে থাকেন। এ কারণে আধ্যাত্মিক দরবার সমূহে বিশ্বের প্রথম চন্দ্র উদয়ের সাথে সামঞ্জস্য রেখে ইবাদত-বন্দেগী পালন করে থাকে।
বাংলাদেশের আকাশে সঠিক সময়ে নতুন চাঁদ উদয় না হওয়ায় আজ হতে প্রায় একশত চল্লিশ বছর পূর্বে শামসুল উলামা আল্লামা হযরত শাহ সূফী সৈয়্যেদ আহমদ আলী ওরফে হযরত জানশরীফ শাহ সুরেশ্বরী রহ. চান্দ্র মাসের সঠিক হিসাব গণনার ভিত্তিতে ইবাদত-বন্দেগী করার জন্যে নির্দেশনা দান করেছেন। তিনি স্বরচিত নূরেহক গঞ্জেনূর গ্রন্থে এ বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা করেছেন। সে নির্দেশনা অনুসারে দরবার শরীফের ভক্ত-অনুসারীগণ এবং অসংখ্য সাধারণ মানুষ বিশ্বের প্রথম চাঁদ দেখার সংবাদের ভিত্তিতে রোজা, ঈদ, শবে কদর, শবে বরাত ও অন্যান্য ইবাদত পালন করেন।
চাঁদের হিসাবের বিষয়ে রাসূল সা. বলেছেন, “তোমরা চাঁদ দেখে রোজা রাখ, আর চাঁদ দেখে রোজা সম্পন্ন কর। যদি আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকে তা হলে শাবান মাসের দিনের সংখ্যা ত্রিশ পূর্ণ কর।” (বুখারী ও মুসলিম শরীফ) সহিহ হাদিসের বর্ণনায় জানা যায় কোন এক ব্যক্তি নতুন চাঁদ দেখার সংবাদ রাসূলুল্লাহ সাঃ কে জানালে তিনি তাকে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি এক ও অদ্বিতীয় আল্লাহকে বিশ্বাস কর? সে জবাব দিল, হাঁ। অতঃপর রাসূল সা. তাকে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কি মুহাম্মদ সা. কে আল্লাহর রাসূল হিসাবে মান? সে জবাব দিল, হাঁ। তখন রাসূল সা. বিলালকে ডেকে বললেন, হে বিলাল সবাইকে জানিয়ে দাও কাল রোজা শুরু। এই ঘটনা থেকে প্রমাণিত হয় সকলকে নিজের চোখে চাঁদ দেখার প্রয়োজন নেই, বরং কোন মুসলমান চাঁদ দেখার সংবাদ জানালে তা অন্য মুসলমানের জন্য মানা আবশ্যক। আধুনিক বিজ্ঞানের আবিষ্কার গ্রহণযোগ্য উপায়ে মুহূর্তের মধ্যে বিশ্বের একপ্রান্তের সংবাদ অন্যপ্রান্তে পৌঁছে দিচ্ছে যা কুরআন-হাদিসের নির্দেশ পালনে সহায়ক। তা সত্ত্বেও অন্য সব ক্ষেত্রে বিজ্ঞানের আবিষ্কার স্বীকার করে নেয়া হলেও চাঁদের হিসাবের ক্ষেত্রে কেন এদেশ পিছিয়ে তা বোধগম্য নয়। বিশ্বব্যাপী সর্বত্র একই দিনে জুমার নামাজ আদায় হলেও ঈদের নামাজ আদায় হচ্ছে না। অজ্ঞতাই এর মূখ্য কারণ।
বাংলাদেশের আকাশে নতুন চাঁদ যথাসময়ে দৃষ্টিগোচর হয় না। তাই রহমতে পূর্ণ রমজানের ১টি বা ২টি রোজা বাদ হয়ে যায়। অন্যদিকে আল্লাহর হিসাবের রোজা শেষ হয়ে গেলেও এদেশের মানুষ রোজা পালন করতে থাকে। অর্থাৎ ঈদের দিনেও রোজা রাখে, যা হারাম। তাই নতুন চাঁদের হিসাবের ক্ষেত্রে কুরআন ও হাদিসের নির্দেশনা যথাযথ অনুসরণের মাধ্যমে ফরজ রোজার সংখ্যা সঠিকভাবে পালনের প্রতি সকলের যত্মবান হওয়া আবশ্যক।

চাঁদের হিসাব ও রোজার সংখ্যা : আলহাজ্জ্ব খাজা শাহ সূফী সৈয়্যেদ নূরে আখতার হোসাইন আহমদীনূরী মা.জি.আ.

https://www.facebook.com/bm24tvofficialpage