করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের জারি করা কঠোর বিধিনিষেধের শেষের দিকে এসে রাজধানীতে যানবাহনের চলাচল অনেক বেড়ে গেছে। আজ রোববার গাড়ির চাপে ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, বাংলামোটর ও পান্থপথ এলাকায় যানজট দেখা গেছে। বিধিনিষেধ কার্যকরে সড়কে দায়িত্ব পালনরত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতাও আগের চেয়ে কম দেখা গেছে।

আজ সকালে কারওয়ান বাজার মোড়ে যানজট দেখা যায়। সেখান থেকে যানজট কখনো কখনো ফার্মগেট, পান্থপথ, বাংলামোটর ও হাতিরঝিল পর্যন্ত গিয়ে ঠেকে।

এ ছাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ও বিজয় সরণি এলাকায়তেও যানজট দেখা গেছে। অন্যদিকে, শাহবাগ, মৎস্য ভবন ও পল্টন এলাকায় সড়কের মোড়কেন্দ্রিক কিছুটা চাপ দেখা যায়।

কারওয়ান বাজারে কর্তব্যরত তেজগাঁও জোনের ট্রাফিক পরিদর্শক আনোয়ারুল কবির প্রথম আলোকে বলেন, আজ সপ্তাহের প্রথম দিন হওয়ায় যানবাহনের চাপ একটু বেশি। তবে তুলনামূলকভাবে কারওয়ান বাজারকেন্দ্রিক যানজট একটু বেশি। এর মূল কারণ হলো মেট্রোরেলের নির্মাণকাজ। মেট্রোরেলের নির্মাণকাজের কারণে রাস্তা সংকীর্ণ হয়ে গেছে। স্বাভাবিক গতিতে যানবাহন চলতে পারছে না। এ জন্য কারওয়ান বাজারে সঙ্গে যুক্ত ফার্মগেট, পান্থপথ, পল্টন ও হাতিরঝিলের রাস্তায় যানজট একটু বেশি।

কঠোর বিধিনিষেধের শেষের দিকে এসে রাজধানীতে যানবাহনের চলাচল অনেক বেড়ে গেছে

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, কঠোর বিধিনিষেধ বা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হবে কিনা তা জানা যাবে আগামী মঙ্গলবার (৩ আগস্ট)। পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

শনিবার (৩১ জুলাই) সংবাদমাধ্যমকে এসব কথা জানান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।


তিনি বলেন, পরিস্থিতি বিবেচনা করে ৫ তারিখের পর কী হবে সেই সিদ্ধান্ত আমরা দেব। তবে লকডাউন কী পরিসরে থাকবে তা আমরা এখনো সিদ্ধান্ত নেইনি। আমরা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত জানাব। চলমান এই লকডাউন কঠোরতম ছিল সে অনুযায়ী আমাদের সবকিছুই বন্ধ ছিল। কিন্তু এখন তো আর সেটি থাকছে না। এখন স্বল্প পরিসরে খোলা হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় আমাদের শিল্প-কারখানা খোলা হচ্ছে।

৫ আগস্টের পরের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, আগামী ৩ আগস্ট সিদ্ধান্ত জানানোর চেষ্টা করব। ওইদিন না হলে ৪ আগস্ট সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেব।

লকডাউন বাড়ানো হবে কিনা তা জানা যাবে (৩ আগস্ট)

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে কঠোর বিধিনিষেধ চলছে। বিধিনিষেধের পঞ্চম দিনে আজ মঙ্গলবার রাজধানীতে ৫৫৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বিনা প্রয়োজনে বাসা থেকে বের হওয়ার অভিযোগে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগ থেকে এসব তথ্য জানানো হয়। ডিএমপির গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগের তথ্যমতে, আজ সকাল ছয়টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত অকারণে ঘর থেকে বের হওয়ায় তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। ডিএমপির ভ্রাম্যমাণ আদালত ২৩৬ জনকে ৪ লাখ ৮৩ হাজার ৯৭৫ টাকা জরিমানা করেছেন। পাশাপাশি ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ সড়ক পরিবহন আইন অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন করাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ৪৯৭টি গাড়িকে ১১ লাখ ৭৩ হাজার টাকা জরিমানা করে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমাতে ১ থেকে ৭ জুলাই কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার। পরে তা ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়।
ঈদুল আজহার কারণে ১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়। এরপর ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোরতম বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার।

কঠোর বিধিনিষেধের পঞ্চম দিনে রাজধানীতে গ্রেপ্তার ৫৫৫

ঈদুল আজহার আগে অনেকটাই শিথিল হচ্ছে বিধিনিষেধ।
আগামী ১৫ জুলাই থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে সব ধরনের গণপরিবহন। একই সঙ্গে খুলবে দোকানপাট-শপিংমল, সেক্ষেত্রেও স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মানতে হবে।
এসব শর্ত দিয়ে বিধিনিষেধ শিথিল করে সোমবার সন্ধ্যা বা মঙ্গলবার সকাল নাগাদ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। শিথিল করে নতুন বিধিনিষেধের মেয়াদ আগামী ২৩ জুলাই পর্যন্ত বর্ধিত হতে পারে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।
শিথিল সময়ে সরকারি অফিস ভার্চুয়ালি চলবে বলেও জানা গেছে। ঈদুল আজহা উদযাপনে সুবিধার জন্য সরকার বিধিনিষেধ শিথিলের এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
আগামী ২১ জুলাই (বুধবার) দেশে মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। এরপর ২৩ জুলাই সকাল থেকে আবারও কঠোর বিধিনিষেধ দেয়ার প্রস্তুতি সরকারের রয়েছে বলে জানা গেছে।

১৫ জুলাই থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে সব ধরনের গণপরিবহন

https://www.facebook.com/bm24tvofficialpage