চাঁদের হিসাব ও রোজার সংখ্যা : আলহাজ্জ্ব খাজা শাহ সূফী সৈয়্যেদ নূরে আখতার হোসাইন আহমদীনূরী মা.জি.আ.
ইসলামের প্রথম ও প্রধান ফরজ জ্ঞানার্জন করা। যে কোন ইবাদত পালন করার জন্য সেই ইবাদতের নিয়ম-কানুন সম্পর্কে আগে জানতে হয়। তা না হলে ইবাদত ত্রুটিমুক্ত হয় না। ত্রুটিযুক্ত ইবাদত থেকে কাঙ্ক্ষিত রহমত, নেয়ামত ও ফজিলত লাভ করা যায় না। তাই বলা হয়েছে এক ঘণ্টার জ্ঞান চর্চা ৭০ বছর নফল ইবাদতের চেয়ে উত্তম। বিদ্বানের কলমের কালি শহীদের রক্তের চেয়েও পবিত্র। এ রকম অসংখ্য মূল্যবান বাণীর মাধ্যমে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন এবং তাঁর রাসূল পাক সাঃ জ্ঞানার্জনের প্রতি সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করেছেন।
মুসলমানদের অনেক ইবাদত চাঁদের হিসাবের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। আল্লাহ পাক এবং তাঁর হাবিব মুহাম্মদ সাঃ চাঁদের হিসাব সম্পর্কে বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করেছেন। রাসূল সা. নতুন চাঁদের যথাযথ হিসাব রাখতেন এবং উম্মতগণকে সে বিষয়ে সবিশেষ নির্দেশনা দান করেছেন। কেননা সঠিক ভাবে ইবাদত বন্দেগী পালন এবং তা থেকে কাক্সিক্ষত রহমত-নেয়ামত লাভ করতে হলে চাঁদের হিসাব সম্পর্কে সম্যক ধারণা রাখা এবং সঠিক ভাবে হিসাব গণনা করা একান্তভাবে জরুরী। যে দিনে যে সময়ে যে ইবাদতের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তা যদি সঠিক দিন-ক্ষণ সময়ে পালিত না হয় তবে শ্রম বিফল হবে, সময় নষ্ট হবে এবং কোন কোন ক্ষেত্রে ফজিলত লাভের পরিবর্তে ভুল দিন-ক্ষণে ইবাদত পালন আদেশ লঙ্ঘনের সামিল বা গুনাহের কারণও হয়ে থাকে। তাই এ বিষয়ে জ্ঞানার্জন করা অতি আবশ্যক।
চাঁদের হিসাবে গরমিলের কারণে নির্দিষ্ট সময়ের কাঙ্ক্ষিত রহমত-ফজিলত হতে বঞ্চিত হতে হয়, কেননা শবে কদর, শবে বরাত, শবে মিরাজ ইত্যাদি এক রাতেরই ব্যাপার। হিসাব গণনা সঠিক না হলে তা পাওয়া যাবে না। একই ভাবে হিসাবের ক্রটির কারণে রমজানের ফরজ রোজা বিলম্বে শুরু এবং ঈদের দিনে রোজা রাখার মাধ্যমে হারাম রোজাও পালিত হয়।
পবিত্র কুরআনে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেছেন, নিশ্চয় আল্লাহর বিধান ও গণনার মাস বারটি, আসমানসমূহ ও পৃথিবী সৃষ্টির দিন থেকে। তন্মেধ্যে চারটি মাস সম্মানিত। এটিই সুপ্রতিষ্ঠিত বিধান, সুতরাং তোমরা নিজেদের প্রতি অত্যাচার করো না। (সূরা তওবা, আয়াত-৩৬) আল কুরআনে অন্যত্র বর্ণিত হয়েছে, তিনিই সে মহান সত্তা যিনি বানিয়েছেন সূর্যকে উজ্জ্বল আলোকময়, আর চন্দ্রকে স্নিগ্ধ আলো বিতরণকারীরূপে এবং অতঃপর নির্ধারণ করেছেন এর জন্য মনজিলসমূহ, যাতে করে তোমরা চিনতে পার বছরগুলোর সংখ্যা ও হিসাব। আল্লাহ তায়ালা এই সমস্ত কিছু এমনিতেই সৃষ্টি করেননি, কিন্তু যথার্থতার সাথে। তিনি প্রকাশ করেন লক্ষণ সমূহ সে সমস্ত লোকের জন্য যাদের জ্ঞান আছে। (সূরা ইউনুছ, আয়াত-৫)
এভাবে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন চাঁদের সঠিক হিসাবের গুরুত্ব অনুধাবনে জ্ঞানী ব্যক্তিদের মর্যাদা সম্পর্কেও বর্ণনা করেছেন। চাঁদের হিসাবের বিষয়ে অন্য একটি আয়াতে বর্ণিত হয়েছে, (হে রাসূল সাঃ) ! মানুষ আপনাকে নতুন চাঁদ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করে। আপনি বলে দিন তা মানুষের জন্য সময় নির্ধারক এবং হজ্বের সময় নির্ধারণকারী। (সূরা বাকারা, আয়াত-১৮৯)
আল কুরআনের এ সকল নির্দেশ ও নিদর্শন সমগ্র বিশ্বের মানব জাতির জন্য সমভাবে প্রযোজ্য। দেশ বা অঞ্চল বিশেষে তা হেরফের করার সুযোগ নেই। তাই এলাকা ভিত্তিক চাঁদের ভিন্ন ভিন্ন হিসাব গ্রহণীয় নয়। ইসলামের বিধি-বিধান যথার্থরূপে পালনের লক্ষ্যে মুসলিম রাষ্ট্রসমূহের সংগঠন ওআইসি’র অঙ্গ সংস্থা ‘ইসলামী ফিকাহ একাডেমী’ ১৯৮৬ সালে আম্মানে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে ৬ নং প্রস্তাবে ঘোষণা করে, “কোন দেশে নতুন চাঁদ দেখা গেলে অন্য দেশের মুসলমানদেরও তাই মেনে চলা দরকার। চন্দ্র উদয়ের স্থানের পার্থক্য বিবেচনার প্রয়োজন নেই। কেননা চাঁদ দেখা মাত্র রোজা রাখার (অর্থাৎ রমজান শুরু করার) ও শাওয়ালের চাঁদ দেখে ঈদ করার আদেশ সার্বজনীন ও সবার জন্যে প্রযোজ্য।”
বিশ্বের সকল মুসলিম দেশের ইসলামী আইন বিশারদগণ ওআইসি’র ফিকাহ একাডেমির সদস্য। তাদের উক্ত সিদ্ধান্ত অনুসারে বিশ্বের ৫৭টি মুসলিম দেশের মধ্যে ৪৭টি দেশে একই দিনে রোজা, ঈদ ও অন্যান্য ইসলামী পর্ব পালন করছে। বিশ্বের সবচেয়ে বড় মুসলিম দেশ ইন্দোনেশিয়া। আর জ্ঞান-বিজ্ঞানে অগ্রসর দেশ সমূহের অন্যতম মালয়েশিয়া। এই দেশ দুইটির অবস্থান বিশ্ব মানচিত্রের পূর্ব দিকে। বাংলাদেশের সাথে সৌদি আরবের সময় পার্থক্য ৩ ঘণ্টার। কিন্তু ইন্দোনেশিয়া-মালয়েশিয়ার সাথে সৌদি আরবের সময় পার্থক্য ৫-৬ ঘণ্টা। তা সত্ত্বেও সে সব দেশ ওআইসি’র ফেকাহ একাডেমির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বিশ্বে প্রথম চন্দ্র দর্শনের উপর ভিত্তি করে চাঁদের উপর নির্ভরশীল ইসলামী পর্ব সমূহ উদযাপন করে আসছে। একই সঙ্গে তাদের পার্শ্ববর্তী ব্রুনাই, কোরিয়া এবং সিঙ্গাপুরেও একই দিনে ইসলামী অনুষ্ঠান সমূহ পালন করে।
ওআইসি’র উক্ত সিদ্ধান্ত কিছু মুসলিম রাষ্ট্র অনুসরণ না করার ফলে দেখা যায় একই ইবাদত বা অনুষ্ঠান বিশ্বব্যাপী ৩ দিনেও পালিত হয়ে থাকে। মুসলিম বিশ্বের এ বিশৃঙ্খল অবস্থা সম্পর্কে ২৮ অক্টোবর ২০০৬ এক প্রেস রিলিজে ওআইসি’র মহাসচিব একমেলেদ্দীন ইহসানোগলু বলেন,’ “এ বছর (২০০৬) ঈদুল ফিতর উদযাপনে সময়ের পার্থক্য ৩ দিন পৌঁছেছে। আধুনিক বিজ্ঞান বিশেষতঃ জ্যোতির্বিজ্ঞানের অভাবনীয় অগ্রগতির যুগে এই অবস্থা দুঃখজনক। তিনি আরো বলেন, ইসলামী উৎসবগুলোর বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। এসব উৎসব বিশ্বের সব মুসলিমের হৃদয়ে ঐক্যের বার্তা পৌঁছে দেয়। এই ঐক্য এসব উৎসবের নির্যাস হিসেবে প্রকাশ পায়। কিন্তু এসব উৎসব বর্তমানে মুসলিমদের মধ্যে ঐক্যের বদলে অনৈক্য ও বিভেদের উপলক্ষ হিসেবে উপস্থিত হয়েছে। এতে মুসলিমদের ইতিবাচক ভাবমূর্তি প্রকাশ পাচ্ছে না। এটি একটি বড় ধরনের ভুল। কারণ এসব ধর্মীয় উৎসব ধর্মের বস্তুনিষ্ঠতা থেকে দূরে সরে যেয়ে একঘেয়েমি ও কূপমন্ডুকতার দিকে নিয়ে যাচ্ছে।”
বর্তমান জ্ঞান-বিজ্ঞানের যুগে ওআইসি ছাড়াও বহু মুসলিম ব্যক্তি, সংস্থা ও রাষ্ট্র উপলব্ধি করতে পেরেছে যে, চাঁদ কেন্দ্রিক ইবাদত ভিন্ন ভিন্ন দিতে পালন করা ইসলামের মূল আদেশের সঙ্গে সাযুজ্যপূর্ণ নয় এবং তা আল্লাহর নিকট গ্রহণযোগ্যও নয়। কেননা রমজান মাস নির্দিষ্ট সময়ে রহমতের ভান্ডারসহ আগমন করে। আল্লাহর রহমতের আগমন বার্তা সাধারণ মানুষ অনুধাবন করতে না পারলেও মহান আল্লাহর অলিগণ রুহানী শক্তিবলে তা ঠিকই উপলব্ধি করতে পারেন। সেজন্য তাঁদের আকাশের দিকে তাকিয়ে চাঁদ দেখার প্রয়োজন হয় না। হযরত বড়পীর মহিউদ্দিন আবদুল কাদির জিলানী রহ. এর জীবনে এর প্রকৃষ্ট নিদর্শন পাওয়া যায়। তিনি রমজানের ১ তারিখে জন্মগ্রহণ করেন এবং জন্মাবধি রমজান মাসে রোজা রাখতেন। তাঁর জীবনের প্রথম দিনের ঘটনা থেকে চাঁদের হিসাবের রহস্য জানা যাবে।
শাবান মাসের ২৯ তারিখে নতুন চাঁদ দেখার আশায় হাজার হাজার মানুষ অপেক্ষা করছে। পারস্যের জিলান নগরীর আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকায় তাদের পক্ষে নতুন চাঁদ দেখা সম্ভব হয়নি। পরের দিন রোজা রাখবে কি-না সকলে দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ছিলেন। হযরত আবদুল কাদির রহ. এর পিতা-মাতা সকলের কাছে পরম শ্রদ্ধেয় ছিলেন। ধর্মীয় কোন মাসয়ালা-মাসায়েল জানতে হলে সকলে ছুটে যেত তাদের কাছে। চাঁদ না দেখতে পেয়ে পরের দিন প্রত্যুষে সকলে ছুটলো আবদুল কাদির রহ. এর বাড়িতে। ঘটনাক্রমে তাঁর পিতা সৈয়্যেদ আবু সালেহ মুসা জঙ্গীদুস্ত রহ. সেই সকালে বাড়িতে ছিলেন না। তখন মাতা উম্মুল খায়ের ফাতেমা রহ. সকলকে আশ্বস্ত করলেন এই বলে যে, “রেওয়ায়েতে আছে শাবানের ২৯ তারিখে চাঁদ না দেখা গেলে ৩০ তারিখ গণনা করতে হবে। তারপর রমজান শুরু করতে হবে। তবে বিস্ময়ের ব্যাপার আমার শিশুপুত্র আবদুল কাদির সুবহে সাদিকের পর থেকে কিছুই পান করছে না। আমি তাঁর মুখের মধ্যে দুধ বা মধু দিলেও তা সে বের করে দিচ্ছে। আমার মনে হয় আল্লাহর অশেষ মেহেরবাণীতে সে রোজা পালন করছে।”
মাতার মুখে এ কথা শুনে সকলে বিস্ময়ে অভিভূত হলেন। ফলে তারা সিদ্ধান্ত নিলেন সেদিনে রোজা রাখবেন। পরের দিন আকাশ পরিষ্কার ছিল।
সকলে দেখলেন, যে চাঁদ আকাশে উঠেছে তা দ্বিতীয় দিনের চাঁদ। এখানে শিক্ষণীয়, হাজার হাজার মানুষ আকাশের দিকে তাকিয়ে থেকে যে সিদ্ধান্ত নিতে পারলেন না, শিশু আবদুল কাদির জিলানী মাতৃক্রোড়ে থেকেই সেই সিদ্ধান্ত নিতে পারলেন। আল্লাহর অলিদের পক্ষে এটা সম্ভব। আল্লাহর ঘোষিত নির্দিষ্ট সময়ের সাথে যে নির্ধারিত রহমত ফজিলত পৃথিবীর বুকে অবতীর্ণ হয় তা তাঁরা সাথে সাথে উপলব্ধি করতে পারেন এবং সে মোতাবেক ইবাদত-বন্দেগী পালন করে থাকেন। এ কারণে আধ্যাত্মিক দরবার সমূহে বিশ্বের প্রথম চন্দ্র উদয়ের সাথে সামঞ্জস্য রেখে ইবাদত-বন্দেগী পালন করে থাকে।
বাংলাদেশের আকাশে সঠিক সময়ে নতুন চাঁদ উদয় না হওয়ায় আজ হতে প্রায় একশত চল্লিশ বছর পূর্বে শামসুল উলামা আল্লামা হযরত শাহ সূফী সৈয়্যেদ আহমদ আলী ওরফে হযরত জানশরীফ শাহ সুরেশ্বরী রহ. চান্দ্র মাসের সঠিক হিসাব গণনার ভিত্তিতে ইবাদত-বন্দেগী করার জন্যে নির্দেশনা দান করেছেন। তিনি স্বরচিত নূরেহক গঞ্জেনূর গ্রন্থে এ বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা করেছেন। সে নির্দেশনা অনুসারে দরবার শরীফের ভক্ত-অনুসারীগণ এবং অসংখ্য সাধারণ মানুষ বিশ্বের প্রথম চাঁদ দেখার সংবাদের ভিত্তিতে রোজা, ঈদ, শবে কদর, শবে বরাত ও অন্যান্য ইবাদত পালন করেন।
চাঁদের হিসাবের বিষয়ে রাসূল সা. বলেছেন, “তোমরা চাঁদ দেখে রোজা রাখ, আর চাঁদ দেখে রোজা সম্পন্ন কর। যদি আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকে তা হলে শাবান মাসের দিনের সংখ্যা ত্রিশ পূর্ণ কর।” (বুখারী ও মুসলিম শরীফ) সহিহ হাদিসের বর্ণনায় জানা যায় কোন এক ব্যক্তি নতুন চাঁদ দেখার সংবাদ রাসূলুল্লাহ সাঃ কে জানালে তিনি তাকে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি এক ও অদ্বিতীয় আল্লাহকে বিশ্বাস কর? সে জবাব দিল, হাঁ। অতঃপর রাসূল সা. তাকে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কি মুহাম্মদ সা. কে আল্লাহর রাসূল হিসাবে মান? সে জবাব দিল, হাঁ। তখন রাসূল সা. বিলালকে ডেকে বললেন, হে বিলাল সবাইকে জানিয়ে দাও কাল রোজা শুরু। এই ঘটনা থেকে প্রমাণিত হয় সকলকে নিজের চোখে চাঁদ দেখার প্রয়োজন নেই, বরং কোন মুসলমান চাঁদ দেখার সংবাদ জানালে তা অন্য মুসলমানের জন্য মানা আবশ্যক। আধুনিক বিজ্ঞানের আবিষ্কার গ্রহণযোগ্য উপায়ে মুহূর্তের মধ্যে বিশ্বের একপ্রান্তের সংবাদ অন্যপ্রান্তে পৌঁছে দিচ্ছে যা কুরআন-হাদিসের নির্দেশ পালনে সহায়ক। তা সত্ত্বেও অন্য সব ক্ষেত্রে বিজ্ঞানের আবিষ্কার স্বীকার করে নেয়া হলেও চাঁদের হিসাবের ক্ষেত্রে কেন এদেশ পিছিয়ে তা বোধগম্য নয়। বিশ্বব্যাপী সর্বত্র একই দিনে জুমার নামাজ আদায় হলেও ঈদের নামাজ আদায় হচ্ছে না। অজ্ঞতাই এর মূখ্য কারণ।
বাংলাদেশের আকাশে নতুন চাঁদ যথাসময়ে দৃষ্টিগোচর হয় না। তাই রহমতে পূর্ণ রমজানের ১টি বা ২টি রোজা বাদ হয়ে যায়। অন্যদিকে আল্লাহর হিসাবের রোজা শেষ হয়ে গেলেও এদেশের মানুষ রোজা পালন করতে থাকে। অর্থাৎ ঈদের দিনেও রোজা রাখে, যা হারাম। তাই নতুন চাঁদের হিসাবের ক্ষেত্রে কুরআন ও হাদিসের নির্দেশনা যথাযথ অনুসরণের মাধ্যমে ফরজ রোজার সংখ্যা সঠিকভাবে পালনের প্রতি সকলের যত্মবান হওয়া আবশ্যক।

চাঁদের হিসাব ও রোজার সংখ্যা : আলহাজ্জ্ব খাজা শাহ সূফী সৈয়্যেদ নূরে আখতার হোসাইন আহমদীনূরী মা.জি.আ.

আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচল চালু রাখা হোক — আটাব এর সাবেক মহাসচিব আব্দুস সালাম আরেফ ।
২০২০ সালে করোনা যখন ইতালি, ফ্রান্সসহ ইউরোপে চরম অবস্থা বিরাজ করছিলো তখন বাংলাদেশে ইউরোপ থেকে ফ্লাইট যথারীতি চালু রেখেছে বেসামরিক বিমান চলাচল কতৃপক্ষ ( বেবিচক) । আবার নতুন করোনা যখন ইংল্যান্ডে দেখা দিলো তখনও বিমানের লন্ডন ফ্লাইট ও অন্যান্য ফ্লাইটে লন্ডনের যাত্রী দেশে আশা যাওয়া করেছে বেবিচকের অনুমতি নিয়েই।
যার ফলে দেশে করোনার বিস্তার ঘটেছে ব্যাপকভাবে। করোনা নিয়ন্ত্রনে প্রয়োজনীয় সময়ে বেবিচক কি যথাযথ ভুমিকা রাখতে পেরেছে?
লকডাউনে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ খাত হচ্ছে এভিয়েশন ও টুরিজম খাত। বর্তমানে ধুকে ধুকে চলা এইখাত বেচে থাকার কঠিন লড়াইয়ে অবতীর্ণ । এরই মধ্যে ১৪ই এপ্রিল থেকে আবার ১ সপ্তাহের জন্য ফ্লাইট বন্ধের ঘোষনা দেয়া হয়েছে।  এই নিষেধাজ্ঞা ২/৩ সপ্তাহ বা তার বেশী সময় ও চলতে পারে।
বর্তমান সময়ে সকল যাত্রীর যাওয়া আশা বা ভ্রমনের ক্ষেত্রে করোনা টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট বাধ্যতামূলক। সেক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধের মাধ্যমে বেবিচক কি প্রত্যাশা করছে সেটা বোধগম্য নয়। বর্তমান সময়ে অধিকাংশ দেশের সাথেই ফ্লাইট বন্ধ আছে। শুধুমাত্র মধ্য প্রাচ্যের সৌদি আরব, দুবাইসহ কয়েকটি রাষ্ট্রে শ্রমিকদের যাতায়াত চলমান আছে। বাংলাদেশের শ্রমিক গ্রহনে ঐ সকল দেশের কোন নিষেধাজ্ঞা নাই। এ সকল দেশে শ্রমিক যাত্রীরা যদি যেতে না পারে তাহলে অনেক শ্রমিকের ভিসা বাতিল হয়ে যাবে, অনেক পরিবার পথে বসবে।
ভিসা সংগ্রহকারী ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি ও টিকেট প্রদানকারী ট্রাভেল এজেন্ট, এয়ারলাইন্স, সর্বপরি দেশ, সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। লকডাউনে বিদেশগামী যাত্রীরা কি খুব বেশী সমস্যা করবে নাকি বিদেশগামী এই সব শ্রমিক ভাইয়েরা যেতে না পারলে সমস্যা বা ক্ষতি বেশী হবে ?  আমি মনে করি এই বিষয়টি লকডাউনে আওতার বাহিরে রাখা দরকার। তাই বেবিচক, সিভিল এভিয়েশন মিনিস্ট্রি, সর্বপরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধের সিদ্ধান্ত পুনঃ বিবেচনার আহবান জানাচ্ছি।

আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচল চালু রাখা হোক — আটাব এর সাবেক মহাসচিব আব্দুস সালাম আরেফ ।

করোনা কালীন লকডাউনে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট গুলো চালু রেখে বিদেশগামী ও বিদেশ ফেরত যাত্রীদের জন্য এয়ারপোর্টে যাতায়াতের জন্য বিকল্প ব্যবস্থাপনা জরুরী : আটাব ও হাব এর সাবেক মহাসচিব আলহাজ্ব জিন্নুর আহমেদ চৌধুরী দিপু ।

পত্রিকা ও টিভি রিপোর্ট অনুসারে, লকডাউনে বিমানবন্দরে যাতায়াতে দিক বিবেচনায় নিয়ে ১৪ এপ্রিল হতে কঠোর লকডাউনে আওতায় আন্তর্জাতিক ফ্লাইট সমুহ বাতিল করার পরিকল্পনা করেছেন সরকার । উক্ত পরিকল্পনা বাস্থবায়ন কতটুকু সমীচিন হবে ,তা একটু বিবেচনা করা প্রয়োজন ! পরিকল্পনা যদি বাস্তবায়ন হয় তাহলে বাংলাদেশ হতে বিদেশগামী ও দেশমূখী যাত্রীদের জন্য এক বিরাট সংকট সৃস্টি হবে ।

প্রথমত : মধ্যপ্রাচ্য, সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশে নতুন চাকুরীপ্রাপ্ত ও ছুটিতে আসা চাকুরীরত অনেকে যথাসময়ে কর্মস্থলে যোগ দিতে পারবেন না, ফলে নতুনদের যাত্রা অনিশ্চিত ও পুরনোদের চাকুরী হারাবার সমুহ সম্ভাবনা সৃস্টি হবে । এমনকি অনেকের ভিসার মেয়াদও শেষ হয়ে যেতে পারে।

লকডাউনে আপাতত ৭ দিনের ফ্লাইট বাতিল হলেও লকডাউন পরবর্তীতে ফ্লাইট চালু হওয়ার পর যাত্রীদের যে চাপ সৃস্টি হবে সেক্ষেত্রে যাত্রীর ভ্রমনের দিন ও ক্ষণ নির্ধারনে এক মারাত্মক অনিশ্চিত পরিস্থিতির উদ্ভব হবে। পাশাপাশি এয়ারলাইন্স ও ট্র্যাভেল এজেন্টরাও বিশাল চাপের মূখোমূখী হবেন ।

যারা রেমিট্যান্স যোদ্ধা হিসাবে খ্যাত ও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিরাট অবদান রেখে চলেছেন, লকডাউনে আন্তর্জাতিক ফাইট বাতিল করা কখনো তাদের ব্যক্তিজীবন ও দেশের জন্য ভালো ফল বয়ে আনবে না ।
এই সব যাত্রীর বাইরে আরো বিরাট অংশের পশ্চিমাবিশ্বগামী যাত্রী আছেন যেমন ছাত্র, গ্রিনকার্ড বা ওয়ার্ক পারমিটধারী ইত্যাদি, যাদের ক্ষেত্রে যথাসময়ে তাদের গন্তব্যে পৌছার বাধ্যবাধকতাও রয়েছে ।

উল্লেখ্য, ১৪ এপ্রিল শুরু হওয়া লকডাউন শুধু বাংলাদেশের আভ্যন্তরিন সিদ্ধান্ত, যার সাথে অন্যান্য দেশের কোন সম্পর্ক নাই। আমাদের দেশের মানুষদের কর্মক্ষেত্রের সেই সকল দেশ আমাদের দেশের সমস্যাকে যে বিশেষ গুরুত্ব দিবে তার কি কোন ন্যূনতম নিশ্চয়তা আছে !

বর্তমান পরিস্থিতিতে লকডাউন প্রয়োজন । তারপরও আমাদের প্রবাসীদের অবদান, তাঁদের ব্যক্তি ও দেশের স্বার্থ বিবেচনায় নিয়ে আন্তর্জাতিক ফ্লাইটসমূহ বাতিল না করে লকডাউনে বিদেশগামী ও বিদেশফেরত যাত্রীদেরকে এয়ারপোর্টে গমনাগমনের জন্য বিকল্প ব্যবস্থাপনা সরকার ইচ্ছা করলেই করতে পারেন, যা অতি প্রয়োজনীয় ।তাই সরকার ও সিভিল এভিয়েশনকে বিষয়টি বিবেচনা করে নতুন করে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য অনুরোধ রইল।

করোনা কালীন লকডাউনে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট গুলো চালু রেখে বিদেশগামী ও বিদেশ ফেরত যাত্রীদের জন্য এয়ারপোর্টে যাতায়াতের জন্য বিকল্প ব্যবস্থাপনা জরুরী

বরেণ্য রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী মিতা হক রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। তাঁকে দাফন করা হবে কেরানীগঞ্জের বড় মনোহারিয়ায় ।

তাঁর বয়স হয়েছিল ৫৯ বছর। 

বরেণ্য রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী মিতা হক রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন।

 

মিথ্যা বলা মু’মিনের কাজ নয়” যে যারা মিথ্যা বলে সে বা তারা ফাসেক।
—————-মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী

সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ সোবহানাহু তা’য়ালার জন্য যিনি আলম সমূহের প্রতিপালক এবং দরুদ- সালাম নূরনবী হযরতের ওপর যিনি কুলকাইয়্যেনাতের রহমত মানবতার মুক্তির দূত ও পরপারের শাফায়াতের অধিকার প্রাপ্ত।আলোচ্য বিষয় “মিথ্যা বলা মু’মিনের কাজ নয়”মিথ্যা বলা কোনো ক্ষেত্রেই অনুমোদিত নয়। এছাড়াও মিথ্যা বলা অশোভনীয় ও অত্যন্ত ঘৃণিত কাজ। মিথ্যা ভয়াবহ গুনাহ। মিথ্যা থেকে বেঁচে থাকতে ইসলাম দৃঢ়ভাবে মু’মিনদের সতর্ক করেছে। শরিয়তে সত্যকে সর্বত্রই উৎসাহিত করা হয়েছে। প্রকাশ আছে যে, সত্য মুক্তি দেয়, মিথ্যা ধ্বংস আনে। সামাজিক আচরণবিধি সম্পর্কিত মাসয়ালা পাওয়া যায় বিবদমান দু’পক্ষের মধ্যে সমঝোতা ও শান্তি প্রতিষ্ঠা এবং নির্দোষ ব্যক্তির প্রাণ রক্ষার লক্ষ্যে কখনো অপ্রিয় সত্যটি গোপন করা বা অসত্যকে তুলে ধরার শরীয়তের বিধানে অনুমতি রয়েছে। কোনো বৈধ বিষয়কে প্রতিষ্ঠিত করতে বা অধিকার সুরক্ষার জন্য দ্ব্যর্থবোধক বা অস্পষ্ট কথা বলার অনুমতি শরিয়তে রয়েছে। তবে যে কোনো পরিস্থিতিতে সত্য বলাই শরিয়তের মুল দর্শনের দাবি ও তাকওয়াপূর্ণ।

চারিত্রিক স্খলনের কারণে অনেকে মিথ্যায় জড়িয়ে যায়। মনুষ্যত্ববোধ ও রুচিশীলতা লোপ পেলেও অনেকে মিথ্যার বেসাতি তৈরি করে থাকে। কিন্তু সুস্থ ও সঠিক মন-মস্তিষ্ক সম্পূর্ণ ব্যক্তি কোনোক্রমেই মিথ্যা সমর্থন দিতে পারে না।

মিথ্যাবাদীর পরিণাম দুনিয়া ও আখেরাতে খুবই নিন্দনীয়। তবে নির্দিষ্ট কয়েকটি ক্ষেত্রে ও মৌলিক স্বার্থে ইসলামে মিথ্যা বলার অবকাশ রয়েছে। যেমন ১। যুদ্ধে কৌশলের গোপনীয়তায় মিথ্যা বলা বৈধ,২।দু’পক্ষের মাঝে সমঝোতা করার জন্য মিথ্যা বলা বৈধ,৩।স্বামী-স্ত্রীর মাঝে ভালোবাসা ও মিল তৈরির করার জন্যও মিথ্যা বলা বৈধ।

আল্লাহ তা’য়ালা ইরশাদ করেন, ‘মিথ্যা তো তারাই বানায়, যারা আল্লাহর নিদর্শনসমূহের ওপর ঈমান রাখে না। বস্তুত তারাই মিথ্যুক।(সুরা নাহাল, আয়াত: ১০৫)

আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, ‘মুনাফেকদের নিদর্শন তিনটি : কথা বলার সময় মিথ্যা বলা, প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করা এবং আমানতের খেয়ানত করা। ’ (বুখারি, হাদিস নং : ৩৩, মুসলিম, হাদিস নং : ৫৯)

মুসলিম মনীষীরা বলেছেন, সবচেয়ে বড় মিথ্যা হলো আল্লাহ ও তার রাসুল (সা.) এর ওপর মিথ্যারোপ করা। এর শাস্তি অত্যন্ত ভয়াবহ। কেউ কেউ এ জাতীয় মিথ্যুককে কাফের পর্যন্ত বলেছেন। আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘আর তোমাদের জিহ্বা দ্বারা বানানো মিথ্যার ওপর নির্ভর করে বলো না যে, এটা হালাল এবং এটা হারাম, আল্লাহর ওপর মিথ্যা রটানোর জন্য। নিশ্চয় যারা আল্লাহর নামে মিথ্যা রটায়, তারা সফল হবে না। ’ (সুরা নাহাল, আয়াত : ১১৬)

আলী (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, ‘তোমরা আমার ওপর মিথ্যা বলবে না, যে আমার ওপর মিথ্যা বলবে, সে যেন জাহান্নামে প্রবেশ করে। ’ (বুখারি, হাদিস নং : ১০৬)

ইবনুল কায়্যিম (রহ.) বলেন, ‘এর অর্থ হচ্ছে যে রাসূল সা. এর ওপর মিথ্যা বলবে সে যেন নিজ স্থায়ী ঠিকানা জাহান্নাম বানিয়ে নেয়। ’ (তারিকুল হিজরাতাইন : ১৬৯)

আল্লাহ তা’য়ালা ইরশাদ করেন, ‘হে মু’মিনরা! তোমরা আল্লাহর জন্য ন্যায়ের সঙ্গে সাক্ষ্যদানকারী হিসেবে সদা দণ্ডায়মান হও। কোনো কওমের প্রতি শত্রুতা যেন তোমাদেরকে কোনোভাবে প্ররোচিত না করে যে, তোমরা ইনসাফ করবে না। তোমরা ইনসাফ করো, তা তাকওয়ার নিকটতর। ’ (সুরা মায়েদা, আয়াত : ৮)

ইমাম নববি (রহ.) বলেন, ‘এ সব হাদিস দ্বারা প্রমাণিত হয়, যা যা শোনা যায় তার সব কিছু বলা নিষেধ। কারণ, প্রতিনিয়ত সত্য-মিথ্যা অনেক কিছুই শোনা যায়, অতএব যে ব্যক্তি সব কিছু বলে বেড়াবে—তার দ্বারা মিথ্যা প্রচারিত হওয়াই স্বাভাবিক, যার সঙ্গে বাস্তবতার কোনো সম্পর্ক থাকবে না। আর এটাই হচ্ছে মিথ্যা, মিথ্যার জন্য ইচ্ছা-অনিচ্ছার কোনো দখল নেই। হ্যাঁ, গোনাহগার হওয়ার ইচ্ছা শর্ত। আল্লাই ভাল জানেন। ’ (শরহু মুসলিম : ১/৭৫)

উম্মে কুলসুম (রা.) বলেন, আমি রাসুল (সা.) কে বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি দুই জনের মাঝে সমঝোতা করার জন্য ভালো কথার আদান-প্রদানকালে মিথ্যা বলে—সে মিথ্যুক নয়। ’ (বুখারি, হাদিস নং : ২৫৪৬; মুসলিম, হাদিস নং : ২৬০৫)

আসমা বিনতে ইয়াজিদ বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘তিন জায়গা ব্যতীত মিথ্যা বলা বৈধ নয়। স্ত্রীকে সন্তুষ্ট করার জন্য মিথ্যা বলা, যুদ্ধে মিথ্যা বলা এবং দু’জনের মাঝে সমঝোতা করার জন্য মিথ্যা বলা বৈধ। (তিরমিজি, হাদিস নং : ১৯৩৯; সহিহ আল-জামে : ৭৭২৩)

উল্লেখ্য কওমী হেফাজতীনেতা মামুনুল হক কথিত দ্বিতীয় স্ত্রী সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে তার দ্বারায় সংগঠিত ঘটনার পেইজের লাইভে বক্তিতায় সার্বিক পরিস্থিতি ও অবস্থার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে মিথ্যার বলার ব্যাপারে ইসলামের বিধিবিধানের যে অপব্যাখ্যা করলেন। উপরে উল্লেখিত দলিল মতে প্রমাণিত হয় যে, সে একজন প্রতারক ও ধোঁকাবাজ এবং চরম মিথ্যাবাদী। এ বক্তিতার পর ইসলাম নিয়ে কথা বলার তার কোন নৈতিক অধিকার নাই। যে শয়তানের অনুসারী হয়ে নফসের তারণায় অপকর্ম লিপ্ত হয় এবং অপকর্ম বৈধ করার অপচেষ্টায় ইসলামের অপব্যাখ্যা করে। সে নিঃসন্দেহে জালেম ও পথভ্রষ্ঠ। সুতরাং দেশপ্রেমিক জনতা এপ্রতারকের বিভ্রান্তিমূলক কথার দিকে কান না দিয়ে ইসলামের মৌলিক চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ঈমান আকিদা সুরক্ষায় ব্রতী হবেন বলে প্রত্যাশা করি-ফি-আমানিল্লাহ।

মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী
প্রধান সমন্বয়ক,
বাংলাদেশ সোস্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম।

“মিথ্যা বলা মু’মিনের কাজ নয়” যে যারা মিথ্যা বলে সে বা তারা ফাসেক। মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী

ঢাকা-১৪ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জননেতা আসলামুল হক (এম.পি) স্টোক করে ইন্তেকাল করেছেন।

ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন।

ঢাকা-১৪ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জননেতা আসলামুল হক (এম.পি) স্টোক করে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন।

বিশেষ প্রতিনিধিঃ ৭ মার্চ ২০২১(রবিবার) সকালে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা উপ-কমিটির চেয়ারম্যান ও অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ডঃ মশিউর রহমান ও সদস্য সচিব,অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক চট্রলার গর্ব ওয়াসিকা আয়শা খান এমপি সহ সদস্যবৃন্দরা। বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি শেষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অর্থ ও পরিকল্পনা উপ কমিটির চেয়ারম্যান ও অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ডঃ মশিউর রহমান বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষন জাতির স্বাধীনতার দিকনির্দেশনা মূলমন্ত্র। যে মন্ত্রের মন্ত্রিত মু্ক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে আজ আমরা স্বাধীন জাতি হিসাবে বাংলাদেশ পেয়েছি। তরুণ প্রজন্মকে এই ভাষণের প্রচার করতে হবে যাতে সবাই জানতে পারবেন। সদস্য সচিব ও অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক ওয়াসিকা আয়শা খান এমপি বলেন, এই ভাষন পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ভাষনের অন্যতম। এই ভাষণের জন্য আজ আমরা গর্বিত। এই ভাষণের প্রতিটি অক্ষর জাতির পিতা অত্যন্ত সুচারুভাবে জাতির নিকট উপস্থাপন করেন যা পরবর্তীতে স্বাধীন বাংলাদেশ গঠন হয়। এই ভাষন ছিল বাঙ্গালি জাতির মুক্তির মাইলফলক এবং স্বাধীনতার বীজ রোপণ।

ঐতিহাসিক ৭মার্চ উপলক্ষে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা উপ কমিটি

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা জনাব এইচ টি ইমাম গত কাল রাত ১.১৫ টায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা জনাব এইচ টি ইমাম গত কাল রাত ১.১৫ টায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব মঈনউদ্দীন আব্দুল্লাহ স্যারকে দূর্নীতি দমন কমিশন(দূদক)এর চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব মঈনউদ্দীন আব্দুল্লাহ কে দূর্নীতি দমন কমিশন(দূদক)এর চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

নব-নিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত সেনাপ্রধান  এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ (শফিক)

নব-নিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ (শফিক)

https://www.facebook.com/bm24tvofficialpage